1. mizanurrahmanbadol2@gmail.com : Chaloman Shomoy : Chaloman Shomoy
  2. arasif1989@gmail.com : jony :
  3. mashiur2k@gmail.com : mashiur :
  4. trustit24@gmail.com : Admin panel : Admin panel
  5. chalomanshomoy@gmail.com : Polash News : Polash News
  6. info@chalomanshomoy.com : suvash :
কোম্পানীগঞ্জের ৭শ কিন্ডারগার্টেন শিক্ষক ও কর্মচারীর মানবেতর জীবন যাপন - চলমান সময়
November 27, 2020, 5:45 pm
শিরোনাম:

কোম্পানীগঞ্জের ৭শ কিন্ডারগার্টেন শিক্ষক ও কর্মচারীর মানবেতর জীবন যাপন

প্রশান্ত সুভাষ চন্দ, চীফ রিপোর্টার:
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৭, ২০২০
  • 174 Time View

করোনার প্রাদুর্ভাবে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় প্রায় ৭শ কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষক ও কর্মচারী কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। গত ১৮ মার্চ থেকে সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বন্ধ রয়েছে কোম্পানীগঞ্জের প্রায় ৬০টি কিন্ডারগার্টেন।

এসব স্কুলে কর্মরত শিক্ষক ও কর্মচারীরা বর্তমানে পুরোপুরি কর্মহীন। আয় উপার্জন বন্ধ থাকায় তারা সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। পরিবার পরিজন নিয়ে পড়েছেন চরম বিপাকে। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার একটি পৌরসভা ও ৮টি ইউনিয়নে এসব কিন্ডারগার্টেন স্কুলের বেশির ভাগই ভাড়া বাসায়। যারা স্কুলগুলো পরিচালনা করেন তারাও ৮ মাস যাবৎ বাড়ি ভাড়া পরিশোধ করতে পারছেন না। ফলে উপজেলার এসব কিন্ডারগার্টেন স্কুলের টিকে থাকা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার “বসুরহাট একাডেমীর” শিক্ষক ফেরদাউস হায়দার বলেন, স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রতিষ্ঠান কোনো বেতন পাচ্ছেনা। ফলে শিক্ষকদেরও বেতন দেওয়া হচ্ছেনা। এ চিত্র উপজেলার সকল কিন্ডারগার্টেনের। স্কুল বন্ধ থাকায় সবাই এখন কর্মহীন। কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষকরা সবাই মধ্যবিত্ত পরিবারের, তাই তাদের অভাব-অনটনের কথা মুখ ফুটে কাউকে বলতেও পারছে না। এই শিক্ষকদের অর্থ কিংবা খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করলে তারা কিছুটা উপকৃত হতো বলে তিনি জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, একদিকে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় বেতন বন্ধ। অপরদিকে বিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারনে শিক্ষকদের মূল উপার্জন প্রাইভেট টিউশনিও বন্ধ। যার কারনে চরম বেকায়দায় পড়ে মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে তাদেরকে। ফলে অনেক শিক্ষক পেশা পরিবর্তনের চিন্তায় আছে। খোঁজ করছে অন্য কাজ। কিন্তু করোনার কারনে তাও তারা পাচ্ছেনা।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা কিন্ডারগার্টেন এশোসিয়েশনের সভাপতি করিমুল হক সাথী জানান, কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকরা স্কুলে শিক্ষকতার পাশাপাশি টিউশনির ওপর নির্ভরশীল। ৮ মাস যাবৎ এসব শিক্ষকের কোনো আয় উপার্জন না থাকায় তারা চরম অর্থসংকটে জীবন যাপন করছেন। এসব শিক্ষক করোনাকালে সরকারিভাবে নামমাত্র(১হাজার টাকা) প্রনোদনা পেয়েছিল। কিন্তু এটি কোনভাবেই যথেষ্ট ছিলনা।

তিনি বলেন, সরকারী প্রাইমারী স্কুল বন্ধ থাকলেও মাদরাসা গুলো খুলে দেয়ায় কিন্ডারগার্টেনের ছাত্রছাত্রীরা মাদরাসার দিকে ঝুঁকে পড়ছে। অনেক ছাত্রছাত্রী মাদরাসায় চলে যাওয়ায় বেশ কিছু কিন্ডারগার্টেন বন্ধও হয়ে গেছে। তাছাড়া অভাবের তাড়নায় অনেক শিক্ষক এখন অন্য পেশা খুঁজছে বলেও তিনি জানান।

তিনি সরকারের কাছে আবেদন করে বলেন, কিন্ডারগার্টেন শিক্ষকদের কথা চিন্তুা করে মাদরাসার মতো কিন্ডারগার্টেনও খুলে দেওয়া হোক। আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাশ নেয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো। এতে করে বেঁচে যাবে বিদ্যালয় বেঁচে যাবে শিক্ষক কর্মচারীরা।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার(ভারপ্রাপ্ত) মো: নূরুজ্জামান জানান, কিন্ডারগার্টেন শিক্ষদের কথা চিন্তা করে সরকার কিছুদিন পূর্বে প্রনোদনা দিয়েছিল। আর কোন প্রকল্প আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ মুহুর্তে কোন পরিকল্পনা নেই। থাকলে অবশ্যই তারা পাবে।

সামগ্রিক বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: জিয়াউল হক মীর বলেন, সম্প্রতি সরকারীভাবে কোম্পানীগঞ্জের ৬২১জন কিন্ডারগার্টেন শিক্ষক কর্মচারীকে প্রনোদনা দেয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে কোন বরাদ্ধ আসলে অবশ্যই তা দেয়া হবে। তবে এ মুহুর্তে কোন বরাদ্ধ নেই।

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *