1. mizanurrahmanbadol2@gmail.com : Chaloman Shomoy : Chaloman Shomoy
  2. arasif1989@gmail.com : jony :
  3. mashiur2k@gmail.com : mashiur :
  4. trustit24@gmail.com : Admin panel : Admin panel
  5. chalomanshomoy@gmail.com : Polash News : Polash News
  6. info@chalomanshomoy.com : suvash :
দশমিনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ - চলমান সময়
May 9, 2021, 2:33 am
শিরোনাম:
৭১-এ পরাজয় নিশ্চিত জেনে পাকিস্তানিরা যে কাজ করেছে, মির্জাও তা করছে: বাদল আর কোন ছাড় দেবোনা, কাদের মির্জাকে প্রতিহত করা হবে: মঞ্জু বাঙালির চেতনা-মননের প্রধান প্রতিভূ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর : রাষ্ট্রপতি সুনামগঞ্জে ৬ টুকরো লাশ উদ্ধারের ঘটনায় নারীসহ গ্রেফতার-৬ হালদায় অভিযান, এক হাজার মিটার নিষিদ্ধ জাল জব্দ আবর্জনায়পূর্ণ চৌমুহনী শহরের খালগুলো লাউড়গড় সীমান্তে অবৈধ বালি-পাথরসহ ৩টি নৌকা ও ২টি ট্রাক আটক কোম্পানীগঞ্জে ফের বাস ভাংচুর করেছে মির্জা অনুসারীরা দল থেকে পদত্যাগের পর আ’লীগ নেতাকর্মীদের মামলা দিয়ে হয়রানী করছে কাদের মির্জা কোম্পানীগঞ্জে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের উপর মির্জা অনুসারীদের হামলা, আহত-৪

দশমিনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ

মোঃ আবু বক্কার সিদ্দিক, দশমিনা (পটুয়াখালী) থেকে:
  • আপডেট সময় : সোমবার, মে ৩, ২০২১
  • 211 Time View
চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মৃধা।

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার ৫নম্বর বহরমপুর ইউনিয়ন পরিষদকে টর্চার সেল বানিয়ে ইউপি সদস্যদের নির্যাতন ও বিভিন্ন প্রকল্পের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করে জোর পূর্বক স্বাক্ষর নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি চেয়ারম্যানর বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত মোঃ আনোয়ার হোসেন মৃধা দশমিনা উপজেলার ৫ নম্বর বহরমপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান। এসব ঘটনায় ওই ইউনিয়ন পরিষদের ৮ জন সদস্য গতকাল রোববার( ২ মে) চেয়ারম্যানের বিচার দাবীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বহরমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন মৃধা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে পরিষদের সদস্যদের বিভিন্ন প্রকল্পের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করে তার পরিষদে র্টচার সেলে আটকে রেখে জোর পূর্বক চেকে ও রেজুলেশনে স্বাক্ষর নিয়ে টাকা উত্তোলন করে নিয়ে যান। এছাড়াও তিনি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত সদস্যদের পাশ কাটিয়ে তার নিজস্ব বাহিনী দিয়ে ভিজিডি, ভিজিএফ, এলজিএসপি, এডিপি সহ-বিভিন্ন ভাতার তালিকা ও প্রকল্প তৈরি করে কাজ করেন। যা ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের নির্বাচিত সদস্যদের জন্য অপমান জনক।

ওই ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য নাসির উদ্দিন জানান, ইউনিয়ন পরিষদের কোন কাজেই সদস্যদের সম্পৃক্ত করা হয় না। চেয়ারম্যান তার নিজস্ব বাহিনীর লোকজন নিয়ে ইউনিয়নের কার্যক্রম চালান।

১,২,৩ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য করিমজান বেগম জানান, নির্বাচিত ইউনিয়ন পরিষদের মেয়াদ ৫ বছর অতিবাহিত হলেও এখনো পরিষদের কোন মিটিং হয়নি।

৫ নম্বর ওর্য়াডের সদস্য মুজাহিদুল ইসলাম মিলটন জানান, ট্যাক্স ও রাজস্ব খাতের লাখ লাখ টাকা উত্তোলন হলেও পরিষদ থেকে ইউপি সদস্যদের সম্মানি ভাতার টাকা দেওয়া হয়নি।

৭,৮,৯ নম্বর ওর্য়াডের সদস্য ছালমা বেগম জানান, গত ১৮ এপ্রিল অফিস চলাকালিন চেয়ারম্যানের কাছে টিআর, কাবিখা, জেলে নামসহ রেশন কার্ডের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি ইউপি সদস্যদের হুমকি ধামকি দিয়ে পরিষদের র্টচার সেলে নিয়ে বিভিন্নভাবে নির্যাতন চালিয়ে রেজুলেশন খাতাসহ বিভিন্ন অফিসিয়াল কাগজপত্রে জোর পূর্বক স্বাক্ষর আদায় করেন।

এসব ব্যাপারে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মৃধা জানান, আমার বিরুদ্ধে সম্পূর্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করা হয়েছে। তদন্তে সবকিছু পরিস্কার হয়ে যাবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আল আমিন জানান, ইউপি সদস্যদের অভিযোগের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে দেখা হবে।

সম্পাদনা: প্রশান্ সুভাষ চন্দ, চীফ রিপোর্টার। 

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *